বি এস (BS) খতিয়ান অনলাইনে দেখার নিয়ম

আপনি কি বিএস খতিয়ান অনলাইনে দেখতে চান? তাহলে এই পোস্টটি মাধ্যমে আপনারা বিএস খতিয়ান নাম্বার দেখার নিয়ম অনলাইনের মাধ্যমে জেনে নিতে পারবেন। আপনার হাতে যদি একটি স্মার্টফোন অথবা কম্পিউটার থাকে এবং আপনার যদি খতিয়ান নাম্বার জানা থাকে অথবা অন্য কোনো তথ্য জানা থাকে তাহলে খুব সহজেই আপনারা বিএস খতিয়ান এর যাবতীয় তথ্য পেয়ে যাবেন। তাই যে কোনো জরুরি মুহূর্তে আপনারা অবশ্যই খতিয়ান নম্বর দিয়ে বিএস খতিয়ান এর যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করুন আপনার হাতের মুঠো ফোনের মাধ্যমে। যারা বিএস খতিয়ান দেখার নিয়ম জানেন না তারা এই প্রশ্ন মধ্যমে সঠিকভাবে নিয়ম দেখে নিন।

জমি সংক্রান্ত যেকোন প্রয়োজনের মুহূর্তে আমাদের বিএস খতিয়ান এর নাম্বার প্রয়োজন হয়। তার জন্য আমি অফিসে ছোটাছুটি করে এবং কাগজপত্রে ঘাটাঘাটি না করে অনলাইনের মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে আপনারা বি এস খতিয়ান দেখে নিন। এতে আপনার জন্য অনেক সময় বেচে যাবে এবং কোন ঝামেলা ছাড়াই অনলাইনের মাধ্যমে বিএস খতিয়ান নাম্বার দেখে নিতে পারবেন। তাহলে চলুন আমরা এই বিষয়ে বিস্তারিত নিয়ম কানুন দেখে নেই এবং কিভাবে তা দেখে নিতে হবে জেনে নিই।

আপনাকে প্রথমে যে কোন ব্রাউজার থেকে www.land.gov.bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবেন। তারপরে আপনাদের সামনে একটি ইন্টারফেস চলে আসবে এবং ইন্টারফেসের উপরের দিকের অংশে এর উপরে ক্লিক করবেন। উপরের দিকে একটি সার্চ বাক্স থাকে এবং এই সার্চ বক্সে আপনারা কিছু লিখতে পারেন অথবা এমনিতেই খুঁজুন অপশনটিতে ক্লিক করুন। তাহলে আপনাদের সামনে বেশ কয়েকটি অপশন চলে আসবে। এই অপশন চলে আসলে আপনারা প্রথম অপশনটিতে অর্থাৎ খতিয়ান অনুসন্ধান করুন অনেক অপশনটিতে ক্লিক করুন।

হার পাওয়ার প্রজেক্ট ট্রেনিং বিনামূল্যে মেয়েদের আউটসোর্সিং বিষয়ে ট্রেনিং কারা পাবে, কবে শুরু হবে, কিভাবে করতে হবে

খতিয়ান অপশনটিতে ক্লিক করলে আপনাদের সামনে আরো কয়েকটি অপশন চলে আসবে। এই অপশন এর ভেতরে আপনারা প্রথমে আপনাদের বিভাগ সিলেক্ট করুন। তারপর আপনাদের জেলা সিলেক্ট করুন। তারপরে খতিয়ান এর যে লিস্ট আছে তার মধ্যে আপনারা বি এস খতিয়ান এর উপরে ক্লিক করুন। নিচে গিয়ে আপনাদের উপজেলা এবং মৌজার নাম সিলেক্ট করুন বা ফাঁকা ঘরে উল্লেখ করুন। তারপরে নিচে খুব সহজ একটি ক্যাপচা চলে আসবে। অর্থাৎ কোন সংখ্যা আপনাদের হুবহু পাকা ঘরে তুলে বসাতে হবে অথবা কোন সংখ্যার যোগফল বসাতে হবে। আপনারা ফাঁকা করে সেই তথ্য উল্লেখ করুন।

তারপরে আপ্নারা বেশ কয়েকটি উপায়ে বিএস খতিয়ান বের করতে পারবেন। বি এস খতিয়ান বের করার ক্ষেত্রে আপনারা অরিজিনাল খতিয়ান নাম্বার বসিয়ে এই তথ্য বের করতে। আবার জমির দাগ নম্বর বসিয়ে খতিয়ান বের করতে পারবেন। পিতা বা স্বামীর নাম উল্লেখ করে বি এস খতিয়ান বের করতে পারবেন। তাছাড়া মালিকানার নাম অনুসারে আপনারা বিএস খতিয়ান খুব সহজে বের করতে পারবেন।

এখন আপনাদের অনুসন্ধান করুন অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে। তাহলে আপনাদের সামনে বিএস খতিয়ান নাম্বার চলে আসবে। বিএস খতিয়ান পাওয়ার জন্য আপনারা যে খতিয়ান নাম্বার দিয়েছিলেন সেই খতিয়ান নম্বর এ কতজন ব্যক্তি মালিকানা নাম দেখতে পারবেন। সেখানে কার জমির পরিমাণ কত অংশ তা আপনারা দেখতে পারবেন এবং খতিয়ানের জন্য কত অংশ নির্ধারিত করা হয়েছে তাও দেখতে পারবেন।

তবে বাংলাদেশের যে পরিমাণ খতিয়ান রয়েছে তার সব খতিয়ান এখনো অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে লিপিবদ্ধ করা হয়নি। আপনার বিএস খতিয়ান যদি লিপিবদ্ধ করে থাকে তাহলে অবশ্যই সঠিক তথ্য প্রদানের মাধ্যমে খতিয়ান বের করতে পারবেন। আর যদি বেশি কথা না হয়ে থাকে তাহলে আপনারা অপেক্ষা করতে পারেন। আর যদি বিএস খতিয়ানে সার্টিফাইড কপি তুলতে চান তাহলে আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে সেখানেই আবেদন করার অপশন পাবেন। সেখানে সকল তথ্য প্রদানের মাধ্যমে আপনারা বিএস খতিয়ান এর যাবতীয় কার্যসম্পাদন করতে পারবেন।

তার জন্য আপনাদের ইউ ক্যাশ এর মাধ্যমে টাকা প্রদান করতে হবে। ইউ ক্যাশ এর মাধ্যমে টাকা প্রদানের সময় আপনারা যদি সেই খতিয়ানের কাগজের ডাকযোগের মাধ্যমে গ্রহণ করতে চান তাহলে ডেলিভারী চার্জ প্রদান করতে হবে। আর যদি আপনি ভূমি অফিস থেকে সংগ্রহ করতে চান তাহলে আপনাকে খতিয়ানের খরচ ছাড়া ডেলিভারি চার্জ প্রদান করতে হবে না। আশা করছি যে এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনারা বিএস খতিয়ান সংগ্রহ করার নিয়ম জানতে পেরেছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button