আবেগের কথা, ছন্দ, স্ট্যাটাস,এসএমএস, উক্তি ও পিকচার কালেকশন ২০২০

আবেগ অনুভূতি ভালোবাসা এগুলো পৃথিবীর শুরু থেকেই রয়েছে। বিভিন্ন মানুষ বিভিন্নভাবে আবেগের মধ্যে পড়ে যায়। বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন মানুষকে ভালোবেসে ফেলে ভালোবাসাটা ছিল এবং থাকবে চিরজীবন।
আপনার আমার সবার মাঝে আবেগ বিরাজ করে সবসময়।
সেই কথা চিন্তা করে আপনাদের মাঝে আজ আবেগ এর কিছু কথা,ছন্দ, এসএমএস নিয়ে হাজির হলাম!
এখনো অনেক মানুষ আছে যারা নির্ঘুম রাত জেগে থাকে প্রিয় মানুষটাকে ভেবে। আপনি যদি সেই মানুষটি হয়ে থাকেন তাহলে এই লেখাগুলো আপনার জন্য। আমরা আশা করি আমাদের এই লেখাগুলো আপনাদের অনেক ভালো লাগবে।

আবেগের কিছু কথা।

আবেগের সঙ্গে মানুষের একটা বড় দিক জড়িত। মানুষের আচরণের উপর আবেগের প্রভাব পড়ে নিচে আবেগ নিয়ে কিছু কথা লিখা হলো।

********দূর থেকে********
🔸রেহান কৌশিক

কেউ কারো দুঃখদেহে নিঃশর্তে রেখেছে কোনো হাত?
কোনো হাত শর্তহীন হয়?
সমস্ত মানুষ জানে বিজনে গভীর হয় ক্ষত
জেগে ওঠে অনর্গল ক্ষয়!

আমিও রাখিনি হাত যতটা উচিত ছিল রাখা।

অথচ চেয়েছি ছুঁই, ছুঁয়ে থাকি তোমার বিষাদ
কিন্তু খুঁজে দেখি সব শূন্যের ধারণা
আমার ভিতর দেশে রেখে গেছে মহর্ষি কণাদ!

তোমার মনখারাপের পাশে
আজ শুধু রেখে আসি দীর্ঘ-নদীজল
অপার স্থিরতা নিয়ে দূর থেকে ছুঁয়ে থাকি
তোমার অতল…

চেনো সেই, স্পর্শ চেনো? মনে-মনে জেগেছে সন্দেহ?
তাহলে এবার যাও, ভোরবেলা নদীর কিনারে
কুয়াশা সরিয়ে দ্যাখো— ঢেউজলে ডোবে ভাসে কার
মৌন – মৃতদেহ!

আবেগের কবিতা।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের বিভিন্ন পরিবর্তন আসে। তখন আমাদের আবেগ ভালোবাসা তৈরি হয় তা নিয়ে আপনাদের জন্য এই কবিতা গুলো।

আবেগের গান

আমরা কমবেশি সবাই গান শুনে থাকি। আমাদের যখন প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে যায়। তখন রোমান্টিক গান শুনলে আমাদের অনেক মন বিষন্ন হয়ে যায়। আর যখন আমরা নতুন করে প্রেমে পড়ি তখন রোমান্টিক গান শুনলে আমাদের অনেক ভালো লাগে। গানের সঙ্গে মনের গভীর যোগসুত্র রয়েছে তাই মানসিক অবস্থা বুঝে আমাদের গান শোনা উচিত। কিছু আবেগের গানের কথা এবং রোমান্টিক গানের কথা নিচে দেওয়া হল।

আবেগের কথা

মনের অবস্থার সাথে আবেগের সম্পর্ক
অনেক সময় আমাদের পরিবারের কারণে আমাদের মানসিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায়
আবেগর কিছু কথা নিয়ে, আজকের পোস্টটি।
আবেগ অনুভূতি বা সচেতনতা দুঃখ কষ্ট যেমনই হোক না কেন একটা অনুভূতি আবেগ জায়গার সঙ্গে থাকবেই। আবেগ আমাদের দুঃখ দেয় কষ্ট দেয় আনন্দ দেয় বিভিন্ন কাজে উৎসাহিত করে।
আবেগের কারণে আমরা অনেক সময়ই নিজেকে চেঞ্জ করে ফেলতে পারি।সেই ধরনের কথা গুলো নিচে দেওয়া হলো।
************

আমি চাইলেই আমার আম্মাকে যা ইচ্ছে কিনে দিতে পারি। যেটা আমার স্ত্রী তার বাবা মাকে পারে না। কারণ সে জব করে না।

একজন মাস্টার্স করা নারী হওয়ার পরও সে তার সবটুকু ঢেলে দিয়েছে আমার সংসারে। এটা অনেক বড় জব, অথচ স্যালারি নেই।

আমি তাকে বলেছি, তোমাকে আমি কতটুকু কি দিতে পারব জানি না, কিন্তু তোমার বাবা মাকে যদি কিছু দিতে ইচ্ছে করে, সেটা যত দামীই হোক আমার মানিব্যাগ থেকে নিয়ে নিবা। এর জন্য আমার পারমিশনও নিতে হবে না। সেই সময়ের জন্য আমার মানিব্যাগটা হয়ে যাবে তোমার স্যালারি একাউন্ট।

একটা মেয়ে তার বাবা মাকে কতটা ভালবাসে তা আমার চেয়ে ভালো কেউ জানে না। কারণ আমারও দুটো মেয়ে।

আমি আমার স্ত্রীকে সেভাবেই রাখার চেষ্টা করি যেভাবে আমার মেয়েদের দেখতে চাই।

©❤
collected

আবেগের উক্তি

বিভিন্ন কবি বিভিন্ন রকম ভাবে আবেগ প্রকাশ করে গিয়েছেন। তাদের সেই উক্তিগুলো আজ তুলে ধরা হলো।

০১- হিংস্র
হিংস্র মানুষের চেয়ে, হিংস্র পশু অনেক ভালো

০২ – নিধন
প্রকৃতির সন্তান প্রথিবী, তা মানুষ করে নিধন

০৩ – শত্রুতা
আমার ছায়া আমার সাথে করে শত্রুতা

০৪ – স্বচ্ছতা
আঁধারের আলোতে স্বচ্ছতা বেশী, তুমাতেই তুমি

০৫ – গোপন
মানুষের ভিতরে মানুষ লোকায়, চাঁদকে করে গোপন

০৬ – শিক্ষা
মোমের প্রদীপ শিক্ষা দিলো, পরের উপকারে নিজেকে বিলীন

০৭ – জাত
হুঁকো, পুকুর, সাগর জল, ঢেলে দেখো সব একই জাত

০৮ – প্রকৃত বন্ধু
তুমি যদি প্রকৃত বন্ধু হও, আমাকে তোমার রক্ত পান করাও

০৯ – ভালোবাসা
ভালোবাসা মাকাল ফল, একালে আছে সেকালে নাই

১০ – শত্রুতা
শত্রুতা করনা, তোমার মন তোমাকেই মারবে

১১ – অপেক্ষা
তুমি যার জন্য অপেক্ষা করছ সে চলে গেছে, চেনার কারণে

১২ – অমানুষ
বাব-মা যতই ভালো হোক, সন্তানের মন যদি ভালো না হয়- অমানুষ হবে
১৩ – বিষ
মিষ্টিতে নেই মিষ্টতা, গুনির নেই গুন, বিশ্বাসে মিশে আছে বিষ

১৪ – নারীর মন
পাহাড় সাগর জয় করেছ গ্রহ উপগ্রহ, কিন্তু জয় করতে পারনি নারীর মন

১৫ – সৃষ্টি
নারীর চোখে সৃষ্টি দেখেছি, শুধু পুরুষ করেছে বাহাদুরী

১৬ – রাজ্যপাট
নারীর শোভায় বিশ্ব পাগল, রাজা ছেড়েছে রাজ্যপাট

১৭ – ভালোবাসা
ভালোবাসার জন্ম হয় মনে, কবর হয় শরীরে

১৮ – মানুষ
মানুষ পারেনি মানুষ হতে, সভ্য সমাজে পশু

১৯ – বাকরুদ্ধ
পাখির মুখে মানুষের কথা, বাকরুদ্ধ হবে মানুষ

২০ – আপন
কাছের মানুষ নয় তো আপন, আপন বনের পশু

২১ – পরম আত্মা
পথের পাশে বৃক্ষ ছায়া, সেই তো আমার পরম আত্মা

২২ – জাত
যে করেছে জাতের ভাগ, সেই করেছে জাতি ত্যাগ

২৩ – সাগর
বুকের মাঝে জমাট পহাড়, চোখের মাঝে সাগর

২৪ – বৃক্ষশ্বাস
বৃক্ষশ্বাসে মানুষ বাঁচে, মানুষ শ্বাসে বৃক্ষ বাঁচে

২৫ – ঘুড়ি
মানুষের জীবন লাটাই বাঁধা ঘুড়ির মত

২৬ – প্রজাপতি
জীবন যদি হতো প্রজাপতির মত, নিষ্পাপ ফুলেতে বাস
২৭ – সোলা
লোহা হয় জলে সোলা, মানুষ হয় প্রেমে সোলা

২৮ – মনে
মনে নয় বনে, তবুও সে মনে

২৯ – সুখ
শরীরে সুখ মনেতে নয়, সুস্থ দেহ মনে শান্তি রয়

৩০ – ঈশ্বর
মানুষের জ্বালায় ঈশ্বর পালায়, জলেতে লোকায় হরি

আবেগের ছন্দ

আবেগ নিয়ে বিভিন্ন কবি আবেগের ছন্দ লিখেছেন কেউ কেউ আবার হাসি ঠাট্টা করেও আবেগের ছন্দ লিখেছেন।
সেই গুুলো হলো ;

০১
যুদ্ধ কর, মুক্ত কর
দেশের আগাছা
ভাল মানুষ, যুক্ত কর
পাবে ভরসা

০২
সূয তাপে আছে আলো
বৃক্ষ সেবন করে
গাছ হলো মানব সঙ্গী
শ্রেষ্ঠ বন্ধু গড়ে

০৩
তোমার পাশে একটু বসি
হাসি হাসি মুখে,
যতই বিপদ আসুক কাছে
থাকব মহাসুখে ।।

০৪
যাবো আমি সবুজ গাঁয়ে
আঁকা বাঁকা পথে
বিজন বনে ঘুঘুর বাসা
দেখব তোমার সাথে ।।

০৫
আয়না সখি আমের বনে
পুতুল বিয়া খেলি
কলাপাতার খেলা ঘরে
সকল দুঃখ ভুলি ।।

০৬
আমার বাড়ি আইসো বন্ধু
খাবো যে এক সাথে,
বাটির বড় মাছে মুড়ো
তুলে দেবো পাতে ।।

০৭
আয়’না লতা বট তলাতে
বসবি বাঁশের মাচায়,
গরমকালে বাওরা বাতাস
লুডুর গুটি সাজায় ।।

০৮
ফুল বাগানে ভোমরা নাচে
নাচে গোলাপ রাণী,
তাই’না দেখে মুগ্ধ আমি
ধরি চুলের বেণী ।।

০৯
চারদিকে ঘন-শ্যাম মেঘ
কদম্ব ছায়া বীথি তলে,
বিরহ যায় অঝরে কেঁদে
রাই বিনোদিনীর কোলে ।।

১০
যমুনার জলে শ্যামের তরী
রাই নামেতে ভাসে,
শ্যাম সঙ্গে যা্য় মিলনে
রাধা ভালোবেসে ।।

১১
ফুল ফুটে পাখি ডাকে
উঠে পুবে রবি,
চিরদিন ভালো কাটুক
পাঠক লেখক কবি ।।

১২
মেঘ মিলনে বর্ষা কাঁদে
কাঁদে প্রাণের প্রিয়া,
মেঘের ডাকে ময়ূর মিলন
কাঁদে কদম কেয়া

১৩
গাইল পাখি পাতার ফাঁকে
সবুজ পাতা নড়ে
আইলো উড়ে সকল স্মৃতি
আছ কত দূরে

১৪
কদম তলা এসে তুমি
বাজাও মধুর বাঁশি
তোমার ডাকে ঘর ছেড়ে
আমি চলে আসি

১৫
হাজার হাজার বন্ধুর মাঝে
দাগ কাটে একজন
সেই তো আমার পরম বন্ধু
প্রাণের প্রিয়জন

১৬
শিউলী ফুটে শিশির স্নানে
দূর্বা ঘাসে ঝরে
প্রভাতকালে জাগলে বেলা
শিউলী শিশির মরে

১৭
তোমার বাড়ির আশে পাশে
সবুজ শ্যামল গাছে
আমার চিঠি রাখা আছে
হাস্নাহেনার কাছে

১৮
রোজ প্রভাতে শিউলী ঝরে
গোলাপ কলি ফুটে
আঁধার কোলে বকুল পড়ে
ভোমর মধু লোটে

১৯
তোমার ঠিকানায় পাঠিয়ে দিলাম
মেঘ ভরা বৃষ্টি
অঙ্গ তোমার ভিজবে আজি
দেখবে খেয়াল দৃষ্টি

২০
গভীর ঘুমে স্বপ্ন ঘুরে
পাখনা মেলে যাই যে দূরে
ডানার তালে ছন্দ সুরে
সুখ সকালে বৃষ্টি ঝরে

২১
অজানা মন ক’জনে জানে
জানে কি পরিচয়
মিত্র হয়ে ভালোবেসে
জয় করবে যে হৃদয়

২২
কাঁঠাল পাতার ঘন ছায়ায়
দোয়েলে পাখির বাসা
হাত দিয়োনা আঁতুর ছানায়
হবে সর্বনাশা

২৩
মাঠে ধেনু হাতে বেণু
রাখাল চরায় গরু
বাশির সুরে মুগ্ধ হয়ে
কিশোরী নৃত্য করে শুরু

২৪
মনের ঘরে চোর ঢুকেছে
করবে যে মন চুরি
তাই’ত আমি সজাগ থাকি
ধরা না যেন পড়ি
২৫
জীবন ভাষা অংক কষা
নিয়ম করে চলি
যোগ বিয়োগ গুন ভাগে
পথ যেন না ভুলি

২৬
আজ তোমার প্রয়াণ দিবস
প্রিয় উত্তম কুমার
চির শষ্যায় ঘুমিয়ে আছ
হৃদয়ে আমার

২৭
শ্রাবণের রাতে ফিরে এসো
এই বর্ষার ভরসায়
একা ঘরে শুয়ে কাঁদি
তোমারই আশায়

২৮
কদম ডালে কদম কাঁদে
কাঁদে আমার হিয়া
যৌবন ভরা অঙ্গ আমার
কাঁদে পরান প্রিয়া

২৯
ফিরে এসো বর্ষার জলে
শ্রাবণ ঘন সন্ধ্যায়
এক হয়ে মিশে যাই
মিলনের মোহনায়

৩০
মন ভেসে যাই যৌবন জলে
শ্রাবন ভেজা দিনে
তোমার কথা মনে পড়ে
বন্ধু তুমি বিনে

৩১
কেন আমার এমন হয়
বলতে পারো সখী
তুমি আমার থাকলে কাছে
তখন হই যে সুখী

৩২
দূর আকাশে চন্দ্র তারা
মিটির মিটির হাসে
হৃদয় আমার খুশি খুশি
নীল জ্যোৎস্নায় ভাসে

৩৩
নীল বসনে কে সাজে গো
অঙ্গে ভরা মধু
মাথার কাপড় সরিয়ে দেখি
সে যে আমার বধু

৩৪
তুমি কাকে দিচ্ছ সাজা
স্বাধীন দেশের রাজা ?
একদিন সৈন্য পাশে থাকবেনা
আমরা সেদিন জাগবোনা !

৩৫
তুমি বিশ্বকবি গুরু
আমার প্রভাত রবি
কাব্য গানে দিনের শুরু
তুমি হৃদয় ছবি

৩৬
যে দেশেতে লোভী মানুষ
খাচ্ছে আছে যেটুক
অর্থ সম্পদ কয়লা সোনা
আছে যত পেটুক
৩৭
চাকরী নাইরে বাকরী নাইরে
আছে শুধু ফাঁকি
স্বর্ণের দামে কর্ম দেবে
আছে যত মেকি

৩৮
সুখের আশায় দুঃখে মরি
কর্ম নাইরে দেশে
হাজার হাজার যুবা কর্মী
কষ্ট বুকে পুষে

৩৯
একাল সেকাল বেকার বেশী
চাকরী আছে ঘুষে
কোথাও একটু শান্তি নাইরে
আষ্টে পিষ্টে পিষে

৪০
ঢাক বাজে ঢোল বাজে
বাজেরে বাকযন্ত্র
বেশী কথা আর বলনা
কবিরাজের মন্ত্র

৪১
যেদিক তাকায় সেদিক দেখি
মানুষগুলা ন্যাংটা
ঘুষের ঘোরে লজ্জা বেচে
ভুঁড়ি বাড়ায় সঙটা

৪২
গরু ছাগল ঘাস খায়
ঘুষ খায় অফিসার
মরতে আমার ইচ্ছা করে
বিড়ি চায় চুপিসার

৪৩
বধুর মুখে মধুর হাসি
মিষ্টি চোখের ভাষা
ছন্দ তুলে অঙ্গ দোলে
নিত্য সুখের বাসা

৪৪
পিতা তোমার চেতনা
দেয় যে মনে প্রেরনা
দেশ গেলে তো ফিরে পাবো
কিন্তু মুজিব কোথায় পাবো ?

৪৫
আয়রে আমার রাখাল ছেলে
মাঠে গরুর পালে
নীল আকাশে মেঘের দলে
মনটা যে যাই ভুলে

৪৬
আয়রে যত খেলার সাথী
উড়াই ঘুড়ি মাঠে
শাপলা তুলে মালা গাঁথি
সোনা দীঘির ঘাটে
৪৭
চারদিকে বানের পানি
কলার ভেলা ঠেলি
গাঁয়ের যত খেলার সাথি
জলের খেলা খেলি

৪৮
ছায়া বীথি বনতল
বলি দু’টি কথা
এই দিনটা রেখ স্মরন
না হয় যেন বৃথা
২৫০৮১৮

৪৯
জাতি ভেদে ঈদ আনন্দে
এসো মানুষ ভাই
হাতে সবাই রেখে হাত
মানবতার গান গাই ।।

৫০
সাথে চলো ঈদ গাহে
বিজয়ার দিন মন্দিরে
খ্রীস্টানের বড় দিনে
বুদ্ধ পূর্ণিমা নয় দূরে

আবেগের ছবি

আমরা আবেগের কথা,এসএমএস,কবিতা,নিয়ে ছবি আকারে কয়েকটি ছবি দিলাম।

আবেগি মোবাইল মেসেজ।

আপনাদের কথা চিন্তা করে আবেগী কিছু কথা মেসেজ দেয়া হলো যেগুলো আপনি আপনার প্রিয়তমাকে আমাদের এখান থেকে নিয়ে দিতে পারবেন শুধু তাই নয় এগুলো আপনি ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপে দিতে পারবেন নিচের মোবাইল মেসেজগুলো দেয়া হল।
Updated: March 12, 2020 — 11:15 pm

The Author

শাহরিয়ার হোসেন

শাহরিয়ার হোসেন একজন ক্ষুদ্র ব্লগার। লিখতে খুব ভালোবাসেন। অনলাইনে বিভিন্ন ব্লগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে লিখছেন। কাজের চেয়ে নিজের নাম প্রচারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেন। সে চিন্তা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স কমপ্লিট করেছেন। বর্তমানে একই বিভাগে মাস্টার্স এ অধ্যায়নরত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *