Facebook প্রোফাইল আইডি, পেজ এবং গ্রুপের মধ্যে পার্থক্য কী?

অনেকে ফেসবুক ব্যবহারকারী রয়েছে যারা ফেসবুকে তিনটি প্রধান ফাংশন প্রোফাইল, পেজ ও গ্রুপ এর মধ্যে পার্থক্য বুঝেন না। আপাতদৃষ্টিতে তিনটি বিষয়কে একই মনে হলেও সেগুলো সম্পূর্ণ আলাদা। তিনটি ফেসবুকের অপশন হলেও এগুলোর মধ্যে বিস্তর পার্থক্য রয়েছে।

আমাদের আজকের আলোচনার বিষয় Facebook-এ কোনো প্রোফাইল, পেজ এবং গ্রুপের মধ্যে পার্থক্য কী? এখানে আমরা তিনটি প্রধান ফিচারগুলোর বৈশিষ্ট্য ও পার্থক্য সম্পর্কে আলোচনা করব। তাহলে আর দেরি না করে চলুন মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

ফেসবুক প্রোফাইল

ফেসবুক প্রোফাইলে বেশ কিছু ফিচার রয়েছে। এখন আমরা দেখব ফেসবুক প্রোফাইল এর কি কি বৈশিষ্ট্য আছে।

  1. ফেসবুক ব্যবহার করতে গেলে ফেসবুক আইডি থাকা বাধ্যতামূলক। আপনার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিটাই আপনার প্রোফাইল।
  2. ফেসবুক আইডিতে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার বন্ধু রাখা সম্ভব।
  3. ফেসবুক আইডি থেকে আপনি তিনটি প্রাইভেসিতে পোস্ট করতে পারবেন। সেগুলো হলো Friends, Friends of friends, Public.
  4. ফেসবুক আইডি থেকে মেসেঞ্জারে বন্ধুদের সাথে চ্যাটিং করা যায়।
  5. বিগত বছরগুলোতে পোস্ট করা স্ট্যাটাস গুলো মেমোরিতে দেখা যায়। এবং তা পুনরায় শেয়ার করা যায়।

ফেসবুক গ্রুপ

আপনারা নিশ্চয়ই ম্যাসেঞ্জারের গ্রুপে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিয়েছেন। মেসেঞ্জার গ্রুপ আর ফেসবুক গ্রুপের মধ্যে আকাশ পাতাল পার্থক্য রয়েছে। ফেসবুক গ্রুপে আপনি এমন অনেক কাজ করতে পারবেন যা ফেসবুক প্রোফাইল থেকে সম্ভব না। এবার দেখে নেব ফেসবুক গ্রুপের কি কি বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং কাদের ফেসবুক গ্রুপ পরিচালনা করা উচিত।

  1. ফেসবুক গ্রুপে যত ইচ্ছা মেম্বার এড করা যায়। ফেসবুক গ্রুপের বন্ধুদের কে মেম্বার বলা হয়। আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে বন্ধুদের যেমন ফ্রেন্ডস বলা হয়, গ্রুপের বন্ধুদের মেম্বার বলা হয়।
  2. ফেসবুক গ্রুপের সদস্য হলে সেখানে পোস্ট করা যায়। গ্রুপের সদস্য না হয়ে গ্রুপে পোস্ট করা সম্ভব না।
  3. গ্রুপের যারা সার্বজনীন ক্ষমতার অধিকারী তাদেরকে গ্রুপে এডমিন বলা হয়।
  4. গ্রুপ এডমিন ছাড়াও গ্রুপে আরো কতগুলো পদ রয়েছে। এডমিনের পরে মডারেটর ক্ষমতার দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। গ্রুপের মডারেটর যেকোনো পোস্ট ডিলিট করার ক্ষমতা সংরক্ষণ করে। এছাড়াও যে কোন কমেন্ট ডিলিট করার অধিকার রয়েছে তার।
  5. তিন ধরনের গ্রুপ হয়; ওপেন, ক্লোজ এবং প্রাইভেট। ওপেন গ্রুপের পোস্ট মেম্বার না হয়েও দেখার সুযোগ থাকে। ক্লোজ গ্রুপে মেম্বার না হয়ে পোস্ট দেখার কোন সুযোগ নাই। এবং প্রাইভেট গ্রুপ কেউ সার্চ করে খুঁজে পাবে না যতক্ষণ পর্যন্ত গ্রুপের মেম্বার অন্যকে গ্রুপে যুক্ত না করে।

ফেসবুক পেইজ

ফেসবুক পেজ বা পাতা; গ্রুপ এবং প্রোফাইল থেকে আলাদা। যাদের অনেক বেশি ফলোয়ার থাকে বা সেলিব্রিটি, তাদের ফেসবুক পেজ মেইনটেইন করতে হয়। এবার আমরা দেখব ফেসবুক পেজ সম্পর্কে কিছু বিস্তারিত তথ্য। এটা পড়ার মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কি কি করা যায় ফেসবুক পেজ থেকে।

  1. ফেসবুক পেজে যারা সংযুক্ত থাকে তাদেরকে ফলোয়ার্স বলা হয়।
  2. ফেসবুক পেইজে লাইক দিলে অটোমেটিক্যালি তার ফলোয়ার হয়ে যায়।
  3. যারা ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখে তাদের সামনে পেজ হতে প্রকাশ করা সকল পোস্ট টাইমলাইনে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  4. ফেসবুক পেজে কেউ যদি নোটিফিকেশন অন করে রাখে তাহলে পোস্ট করা মাত্রই ফলোয়ারের কাছে নোটিফিকেশন চলে যায়।
  5. ফেসবুক পেইজে কেউ See First করে রাখলে প্রতিটা পোস্ট তার সামনে অবশ্যই প্রদর্শিত হবে।
  6. যারা অনলাইনে কোন পণ্য বিক্রি করতে চান তাদের অবশ্যই ফেসবুক পেজ থাকা উচিত।

সর্বশেষ কথা

আশা করব আমাদের আর্টিকেলটি পড়ে আপনি ফেসবুক প্রোফাইল, গ্রুপ এবং পেইজ এর মধ্যকার পার্থক্য বুঝতে পেরেছেন। ফেসবুক সংক্রান্ত যেকোন সমস্যার সম্মুখীন হলে আমাদের তা জানাতে পারেন। আমরা আপনার সেবায় সর্বদা নিয়োজিত রয়েছি। এরকম আরো তথ্যপূর্ণ আলোচনা পেতে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। আমাদের আর্টিকেল ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন।

শাহরিয়ার হোসেন

শাহরিয়ার হোসেন একজন ক্ষুদ্র ব্লগার। লিখতে খুব ভালোবাসেন। অনলাইনে বিভিন্ন ব্লগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে লিখছেন। কাজের চেয়ে নিজের নাম প্রচারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেন। সে চিন্তা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স কমপ্লিট করেছেন। বর্তমানে একই বিভাগে মাস্টার্স এ অধ্যায়নরত।

Related Articles

Back to top button
Close
Close