দ দিয়ে হিন্দু মেয়েদের আধুনিক নামের তালিকা অর্থসহ

সন্তান জন্মের পরে একটি পরিবারের ও পিতা-মাতার প্রধান দায়িত্ব হলো সন্তানের একটু মার্জিত ও সুন্দর নাম রাখা। সন্তানের নামকরণ কাজটি অনেক আকর্ষণীয় একটি কাজ। নতুন সদস্যর জন্য এমনিতেই পরিবারে একটা অন্যরকম আনন্দ ও উৎসব বিরাজ করে তার ওপরে যখন সন্তান জন্ম নেয় তখন যেন উৎসব মুখর হয়ে ওঠে পরিবার। শুধু শিশুর পিতা মাতা নয় বরং পরিবারের প্রতিটি সদস্যই তখন শিশুর একটি সুন্দর নাম দেওয়ার জন্য অনেক চিন্তাভাবনা শুরু করে দেয়।

কখনো কখনো পরিবারের বিভিন্ন সদস্য বিভিন্ন রকম নাম রাখে একটি বাচ্চার তখন দেখা যায় যে একটি বাচ্চার বেশ কয়েকটি নাম দেওয়া হয়ে যায়। মোটকথা সন্তানের বা পরিবারের সবচেয়ে ক্ষুদে সদস্য টির নাম করণের কাজটি সবার কাছে অনেক প্রিয় হয়ে থাকে। বিভিন্ন রকম চিন্তাভাবনা করে একটি শিশুর নামকরণ করা হয় কেননা একটি শিশুর নাম কি বল নিছক তাকে সম্মোধন করার জন্য দেওয়া হয়ে থাকে না বরং একটি নাম মানে একটি মানুষের সারা জীবনের পরিচয় অস্তিত্ব বহন করে।

একটি মানুষের মৃত্যুর মাধ্যমে তার সমস্ত অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেলেও সেই মানুষটির নাম মৃত্যুর পরেও তার অস্তিত্বের জানান দিতে থাকে। তাছাড়া একটি সুন্দর নাম একটি সুন্দর ব্যক্তিত্বের ধারক ও বাহক তাই নামকরণ কাজটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে বিবেচিত হয় প্রতিটি পরিবারে।

হিন্দু ধর্মের মেয়ে শিশুদের জন্য যে সমস্ত নাম রাখা হয় সেগুলো বেশিরভাগ ধর্মীয় দিক বিবেচনা করে রাখা হয়। হিন্দু ধর্মের কৃষ্টি-কালচার অন্যান্য ধর্মের থেকে আলাদা হয়ে থাকলেও নামকরণের ক্ষেত্রে তারা ধর্মীয় দিক বিবেচনা করে অন্যান্য ধর্মের মতই। হিন্দু ধর্মের বিখ্যাত দেবী ও মহীয়সী নারীদের নামের অন্য কোন নাম রাখতে দেখা যায়। তাছাড়া দেবীর নামে নাম রাখা যেন হিন্দু ধর্মের একটি জনপ্রিয় ট্রেন্ড। তবে বর্তমানে নামকরণের প্রক্রিয়াটা অনেকটা বদলে গেছে।

বেশিরভাগ মানুষ ধর্মীয় দিক বিবেচনা করলেও বর্তমানে কিছু কিছু মানুষ আধুনিক নাম রাখতে পছন্দ করে। তাছাড়া হাল ফ্যাশনের ট্রেন্ডি ও স্টাইলিশ নাম ব্যবহার করা হয় সন্তানের নামের ক্ষেত্রে। কেটে আবার প্রিয় শিল্পী, প্রিয় ব্যক্তিত্ব এমনকি প্রিয় খেলোয়াড়ের নামে নাম রাখে তাদের সন্তানের। মোটকথা বাচ্চার নামকরণের ক্ষেত্রে এতগুলো দিক বিবেচনা করা হয় যে তা অতি সংক্ষেপে প্রকাশ করা প্রায় অসম্ভব।

বিভিন্ন রকম অক্ষর দিয়ে নাম রাখার ব্যাপক প্রচলন রয়েছে তার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হতে হলো পরিবারের প্রতিটি শিশুর নামকরণ একই অক্ষর দিয়ে হয় অথবা পিতা মাতার নাম অনুযায়ী সেই অক্ষর দিয়ে নাম রাখা হয় সন্তানদের। বংশ-পরম্পরা কিংবা বংশগতভাবে মিলিয়ে নাম রাখা টাও বেশ জনপ্রিয়।

দুই ও তিন অক্ষরের নাম

বেশিরভাগ মানুষ চায় শিশুর নামকরণের ক্ষেত্রে নামটা যেন সংক্ষিপ্ত সুন্দর ও শ্রুতি মধুর হয়। অতিরিক্ত বড় নাম যেমন উচ্চারণে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে আবার কখনো কখনো কোনো মানুষকে বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যে ফেলে দিতে পারে সে কারণে দুই অক্ষরের নাম বেশ জনপ্রিয়। তবে তিন অক্ষরের নাম বেশি চোখে পড়ে সবসময়।

হিন্দু ধর্মের মেয়েদের জন্য দুই দ অক্ষরের ও তিন অক্ষরের নাম ও তার অর্থ যদি পেতে চান তাহলে আমরা আছি আপনার সাথে। শুধুমাত্র আপনাদের সুবিধার্থে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে হিন্দু ধর্মের মেয়েদের নাম করনের জন্য দ অক্ষর দিয়ে দুই অক্ষরের তিন অক্ষরের অনেকগুলো সুন্দর সুন্দর নাম তালিকাকারী অর্থসহ আমাদের ওয়েবসাইটে সাজিয়ে রেখেছি।

একসাথে আপনাদের পছন্দের অক্ষর দিয়ে এতগুলো নাম আপনারা আর কোথাও পাবেন না শুধু তাই নয় আমার পাশাপাশি সুন্দর অর্থগুলো দেওয়া আছে যাতে আপনারা সহজেই খুব অল্প সময়ে ও অল্প পরিশ্রমে আপনার পছন্দের নামটি খুঁজে পেতে পারেন এই নামের তালিকা থেকে। যখনই আপনার প্রয়োজন হবে আপনার পছন্দের নামটি খুঁজে পেতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে যেটি আপনি হিন্দু পরিবারের মেয়ে শিশুর জন্য বেছে নিতে পারবেন।

তাছাড়া খুব সহজেই আপনার আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারবেন এবং দ অক্ষর দিয়ে হিন্দু মেয়ে বাচ্চার জন্য যদি একসাথে অনেকগুলো নাম দেখতে চান তাহলে আপনার অনেক সুবিধা হবে। তাই আজি ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে হিন্দু পরিবারের মেয়ে শিশুর জন্য সবচেয়ে সুন্দর ও আকর্ষণীয় নামটি বেছে নিন।

শাহরিয়ার হোসেন

শাহরিয়ার হোসেন একজন ক্ষুদ্র ব্লগার। লিখতে খুব ভালোবাসেন। অনলাইনে বিভিন্ন ব্লগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে লিখছেন। কাজের চেয়ে নিজের নাম প্রচারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেন। সে চিন্তা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button