ম্যাজিস্ট্রেট এর বেতন কত বাংলাদেশে

ম্যাজিস্ট্রেট এর বেতন কত বাংলাদেশে

বাংলাদেশের যাবতীয় নীতিমালা অনুসরণ করে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের বেতন কত টাকা হতে পারে তা আজকের এই পোস্ট থেকে জেনে নিতে পারেন। আমরা অনেক সময় বলতে থাকি যে আমাদের এলাকায় একজন বড় ভাই ম্যাজিস্ট্রেট হয়েছেন এবং এক্ষেত্রে এই ম্যাজিস্ট্রেট কিভাবে হলেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা আপনাদের কে প্রদান করব। আপনারা যদি ম্যাজিস্ট্রেট সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান এবং তাদের দায় দায়িত্ব সম্পর্কে অবগত হতে চান তাহলে এই পোস্ট অনুসরণ করবেন।

সেই সাথে একজন ম্যাজিস্ট্রেট হতে হলে কোন কোন ধাপ আপনাকে অনুসরণ করতে হবে এবং প্রত্যেক মাসে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত বেতন স্কেল অনুসরণ করে তিনি কত টাকা বেতন পাবেন সে সম্পর্কে ধারণা প্রদান করব। তাই একজন ম্যাজিস্ট্রেট সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য অবশ্যই এই পোস্ট আপনারা পড়বেন এবং এই পোস্টের মাধ্যমে সঠিক তথ্য জেনে নেওয়ার চেষ্টা করবেন।

বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন এর মাধ্যমে প্রত্যেক বছর অথবা দুই বছর অন্তর অন্তর শূন্য পদ থাকা সাপেক্ষে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। আমরা সকলেই জানি যে এই বিসিএস পরীক্ষায় প্রত্যেক বছর লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থী আবেদন করে থাকে এবং এই আবেদন সম্পন্ন হওয়ার পর তাদেরকে প্রথমত প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা লাগে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারলে আপনাকে রিটেন পরীক্ষায় সুযোগ দেয়া হবে এবং রিটেন পরীক্ষায় কঠিন ধাপগুলো উত্তীর্ণ হওয়ার মাধ্যমে আপনাদেরকে ভাইভা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ দেয়া হবে। ভাইভা পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার পরও এখানে অনেকগুলো ধাপ রয়েছে যেগুলো কর্তৃপক্ষের অভ্যন্তরীণ কাজ এবং অভ্যন্তরীণ কাজগুলোতে আপনি যদি উত্তীর্ণ হতে পারেন তাহলে আপনাকে চূড়ান্ত নিয়োগ প্রদান করা হয়ে থাকবে।

বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন যে সকল বিসিএস এর মাধ্যমে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে থাকেন সেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগ পেয়ে থাকেন অনেকেই। তাই যারা ম্যাজিস্ট্রেট হবেন তাদের চয়েজ হিসাবে অবশ্যই প্রশাসন ক্যাডার প্রদান করতে হবে এবং আপনি যখন প্রশাসন ক্যাডারে চয়েস প্রদান করে যাবতীয় ধাপ উত্তীর্ণ হয়ে চূড়ান্তভাবে নিয়োগ পাবেন তখন আপনাদেরকে পরবর্তী কাজে যোগদান করতে হবে। প্রশাসন ক্যাডারের চয়েজ অধিকাংশ আবেদনকারীর হয়ে থাকে বলে এখানে আপনাকে নিয়োগ পেতে হলে প্রচুর পরিমাণে পরিশ্রম এবং কৌশলী এবং ভাগ্যবান হতে হবে। তাই আপনি যখন বিসিএস এর মাধ্যমে প্রশাসন ক্যাডারে যোগদান করবেন তখন আপনাকে নবম গ্রেডে বেতন প্রদান করা হবে।

তবে এলাকার বড় ভাই ম্যাজিস্ট্রেট হয়েছেন এ বিষয়টি সঠিক নয়। কারণ নবম গ্রেড এর মাধ্যমে আপনি যখন বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে নিয়োগ পাচ্ছেন তখন আপনাকে যে পদ প্রদান করা হবে সেই পদের নাম হলো সহকারী কমিশনার। সেই ক্ষেত্রে এই পদকে কখনোই ম্যাজিস্ট্রেট বলা যাবে না। সিআরপিসি এর ধারা অনুযায়ী আপনাকে যদি পদোন্নতি প্রদান করা হয় তাহলে আপনি হয়তো ষষ্ঠ গ্রদে বেতন পাবেন এবং এক্ষেত্রে আপনাকে বিচারবিভাগের মাধ্যমে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে দায়িত্ব অর্পণ করা হতে পারে।

এক্ষেত্রে আপনি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন এবং বিচার বিভাগের একজন সদস্য হিসেবে যাবতীয় প্রশাসনিক কাজ এবং বিচার সংক্রান্ত কাজগুলো করবেন। তাই সরাসরি কাউকে ম্যাজিস্ট্রেট না বলে তার পদ অনুযায়ী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলা উচিত।

তবে যাই হোক একজন ম্যাজিস্ট্রেটের কাজ হলো প্রশাসনিক দায়িত্বগুলো পালন করা এবং এই ক্ষেত্রে তাকে সর্বোচ্চ পরিমাণ পড়ালেখা জানতে হবে এবং যাবতীয় দিক থেকে এক্সপার্ট হতে হবে। যখন আপনি সরকারি কমিশনার হিসেবে বিসিএস এর মাধ্যমে যোগদান করবেন তখন আপনার বেতন স্কেল হবে ২২ হাজার টাকা। এই বেতন স্কেল অনুসরণ করে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের ইনক্রিমেন্ট প্রদান করা হবে এবং অন্যান্য যাবতীয় যেসকল সুযোগ-সুবিধা সরকারি চাকরিজীবীদের প্রদান করা হয়ে থাকে সে সকল যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা আপনারা পেয়ে যাবেন।

সেই সাথে যখন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পদে যোগদান করতে পারবেন অথবা পদোন নিতে পারবেন তখন আপনাদের বেতন স্কেল হবে ৩০ হাজার ৯৩৫ টাকা। সেই সাথে আপনাদের পদোন্নতি হওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ইনক্রিমেন্ট এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা চালু হয়ে যাবে।

About শাহরিয়ার হোসেন 4779 Articles
Shahriar1.com ওয়েবসাইটে আপনার দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় যা কিছু দরকার সবকিছুই পাবেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*