ইউএনও এর বেতন কত

আপনি যদি ইউএনও এর বেতন সম্পর্কে ধারণা অর্জন করতে চান অথবা কেউ যদি ইউএনও পদে চাকরি পেয়ে থাকে তাহলে তার বেতন কত টাকা হতে পারে তা আজকের এই পোস্ট থেকে জেনে নিবেন। প্রত্যেকটি উপজেলায় একজন নির্বাহী অফিসার কে দায়িত্ব অর্পণ করা হয়ে থাকে। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের অধীনে যে বিসিএস পরীক্ষা গ্রহণ করা হয় সেই বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে একজন মানুষ ইউএনও পদে যোগদান করার সুযোগ পেয়ে থাকে।

যেহেতু একজন ইউএনও ফার্স্ট ক্লাস অফিসার সেহেতু তার বেতন কাঠামো অনুসরণ করে কত টাকা বেতন হতে পারে তা আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে আপনাদেরকে বিস্তারিত ভাবে জানিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করব। তাই একজন সাধারণ জনগণ হিসেবে অথবা বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী হিসেবে অথবা যে কোন ব্যক্তি হিসেবে আপনারা ইউ এন ও এর প্রথম বেতন কত টাকা দিয়ে শুরু হতে পারে তা জেনে নিবেন।

আমাদের দেশের চাকরির গ্রেড অনুসরণ করে প্রথম থেকে নবম গ্রেডের চাকরি কে ফার্স্ট ক্লাস চাকরি ধরা হয়ে থাকে। তাই একজন ইউএনও যখন বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে প্রিলিমিনারি, লিখিত এবং ভাইভা পরীক্ষার সহ অন্যান্য পরীক্ষা যখন উত্তীর্ণ হতে পারে তখন তার চয়েজ অনুসরণ করে তাকে ইউএনও পদে যোগদান করার। বিশেষ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফলের পর বিভিন্ন জায়গায় ট্রেনিং দেওয়ার পরে তাদেরকে বিভিন্ন উপজেলায় নিয়োগ দান করা হয় এবং সেখান থেকে তারা দায়িত্ব পালন করতে শুরু করে। একজন ইউএনও একটি উপজেলার সর্বোচ্চ ক্ষমতাশালী একজন ব্যক্তি যিনি একটি উপজেলা খুব সুন্দর হয়ে পরিচালনা করার দক্ষতা রাখেন।

একটি উপজেলার ভিতরে যে সকল কার্যাবলী অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে সেই সকল কার্যাবলীতে যাবতীয় সিদ্ধান্ত এবং মতামত প্রদান করার ভিত্তিতে গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো সম্পাদন হয়ে থাকে। অর্থাৎ একটি উপজেলার কর্ণধার হিসেবে ইউএনও দায়িত্ব পালন করে থাকেন এবং একজন ইউএনও সর্বোচ্চ পরিমাণ সম্মান পেয়ে থাকেন। তবে যাই হোক আপনারা যখন জানতে চাইবেন এই ফার্স্ট ক্লাস অফিসারের যোগদানের ক্ষেত্রে কত টাকা বেতন হতে পারে তখন আপনাদেরকে এ বিষয়ে আমরা জানিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করব। আপনি শুধু এই পোষ্টের মাধ্যমে এই তথ্য জেনে নেবেন এবং এই তথ্য জানার মাধ্যমে আপনার মনের ভেতরে যে ধরনের অনুসন্ধিৎসা রয়েছে তা দূর হয়ে যাবে।

তাই আপনাদেরকে বেতন জানানোর উদ্দেশ্যে আমরা যখন এই তথ্য প্রদান করব তখন বলব যে একজন ইউএনও যখন প্রাথমিকভাবে চাকরিতে যোগদান করে তখন তাকে নবম গ্রেডের স্যালারি প্রদান করা হয়ে থাকে। নবম গ্রেড থেকে আস্তে আস্তে কয়েক বছর পার হওয়ার পরে তাকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হয় এবং পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে তার বেতনের গ্রেড এগোতে থাকে। এই বেতনের গেট একটা সময় তৃতীয় অথবা চতুর্থ গ্রেডে গিয়ে দাঁড়ায় যেখানে তার বেতনের পরিমাণ গিয়ে অনেক হয়ে যায়। তবে ২০১৫ সালের প্রকাশিত নীতিমালা অনুসরণ করে একজন প্রথম শ্রেণীর চাকরিজীবীর বেতনের কাঠামো হলো ২২ হাজার থেকে 53 হাজার ষাট টাকা পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছে। এই টাকাগুলো নির্ধারণ করার পর তাকে বিভিন্ন ধরনের সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হবে।

বেসিক অনুযায়ী উপজেলায় ৪০% জেলায় ৫০% এবং ঢাকা সিটিতে ৫৫% হারে বাসা ভাড়া প্রদান করা হবে। এছাড়াও চিকিৎসা ভাতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে যে সুযোগ সুবিধা গুলো একজন প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা হিসেবে তিনি পাবেন। তবে ইওনো ছাড়া অন্য কোন ক্যাটাগরির দিক থেকে প্রথম শ্রেণীর চাকরিতে আসলে প্রথমে একটি অথবা দুটি ইনক্রিমেন্ট পেয়ে যায় যে কারণে বেতনের পরিমাণ আরো বেশি হয়ে যায়। তবে ইউএনও হিসাবে তিনি প্রত্যেক বছরে ৫ পার্সেন্ট হারে ইনক্রিমেন্ট পাবেন। এই পোস্টের মাধ্যমে বেসিক সম্পর্কে ধারণা পেলেন এবং বেসিকের মাধ্যমে তার বেতনের যাবতীয় কাঠামো নির্ধারণ করে প্রত্যেক মাসে তা প্রদান করা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button