উ দিয়ে হিন্দু মেয়েদের আধুনিক নামের তালিকা অর্থসহ

শিশুর নাম রাখা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ। জন্মের পর একটি শিশুর নাম নির্ধারণ করা হয় পিতা-মাতা বা পরিবার কর্তৃক। যেহেতু পরিবারে যখন নতুন সদস্যের আগমন ঘটে তখন সবাই অনেক খুশি হয়। পরিবার পিতা-মাতা তখন নানা বিষয় বিবেচনা করে তাদের নতুন সদস্যের জন্য অনেক সুন্দর একটি নাম ঠিক করে। নামকরণের কাজটি পিতা-মাতা করলেও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা নাম রাখার ক্ষেত্রে তাদের মতামত দিয়ে থাকে। কখনো কখনো একের অধিক নাম একটি শিশুকে দেওয়া হয়। আদরের সন্তানকে একটি আকর্ষণীয় সুন্দর নাম দিতে পিতা-মাতার সিস্টার যেন কমতি নেই।

পিতা-মাতা একটি সুন্দর নাম খুঁজে পাওয়ার জন্য অনেক বিচার-বিশ্লেষণ করে যেন তাদের বাচ্চার নাম কি অন্য সবার থেকে আলাদা ইউনিক হয়। শুধুমাত্র সুন্দর একটি নাম দিয়ে যেন তাদের সন্তানকে আর দশজনের থেকে পৃথক করা যায় সে কারণে সুন্দর নাম রাখার জন্য তারা অনেক চেষ্টা করে। পৃথিবীতে প্রত্যেকটা মানুষের আলাদা আলাদা নাম রয়েছে আর নাম দিয়ে মানুষ সকলের নিকট পরিচিত হয়।

বিভিন্ন ধর্মে নাম রাখার রীতিনীতি ও পদ্ধতি একটু অন্যরকম হলেও মূলত সবাই নাম রাখার বিষয় টা অনেক গুরুত্ব সহকারে দেখেন। পছন্দের একটি নাম রাখার জন্য প্রতিটি পরিবারেই শিশুর জন্মের আগে থেকেই চিন্তা ভাবনা করে যেন একটি সুন্দর নাম রাখতে পারে। কেননা আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ আর হয়তো সেই শিশুটি হয়ত একদিন বিশ্ব জয় করবে। তাই শিশুর নাম যেন অনেক সুন্দর হয় সেজন্য অনেক নাম যাচাই বাছাই করা হয়।

প্রতিটি ধর্মে বলা হয়েছে যে শিশুর নাম যেন পজেটিভ ও সুন্দর হয়। নামের অর্থ অবশ্যই সুন্দর ও মার্জিত হতে হবে এবং পজিটিভ অর্থ বহনকারী হতে হবে। অনেক পন্ডিত ব্যক্তি বিশ্বাস করেন যে শিশুর নাম যদি ভালো না হয় কিংবা নামের অর্থ যদি নেগেটিভ অর্থ বহন করে তবে ভবিষ্যতে সেই নামের খারাপ অর্থ বা প্রভাব সেই শিশুটির চরিত্রে প্রভাবে প্রতিফলিত হতে পারে যা মোটেও কাম্য নয়। প্রতিটি ধর্মের নাম রাখার ক্ষেত্রে ধর্মীয় দিক বিশেষভাবে বিবেচনা করে থাকে।

আবার এটাও বিশ্বাস করা হয় যে নামের অর্থ যদি সুন্দর হয় তবে সুন্দরবন হলো একটি শিশু তার জীবনে ধারণ করতে পারবে। এসব ধারণার সত্যি হোক বা মিথ্যা হোক মানুষ এগুলো মেনে চলে। হিন্দু ধর্মের মেয়ে শিশুদের যখন নাম নির্বাচন করা হয় তখন দেখা যায় যে তাদের বেশিরভাগ নামগুলো তাদের দেবী ও গুণী নারীদের নামের অনুকরণে রাখা হয়। এসব নামের অর্থ গুলো যথেষ্ট সুন্দর তবে বর্তমানে অনেকে মেয়ে শিশুর নাম রাখার জন্য আধুনিক স্টাইলিশ নাম পছন্দ করে। সুপ্রাচীন কাল থেকেই নামকরণ বিষয়টি বেশ গুরুত্বের সাথে বিবেচিত হয়ে আসছে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের নিকট।

উ অক্ষর দিয়ে অনেক সুন্দর সুন্দর নাম রয়েছে। এসব নামগুলো হিন্দু ধর্মের মেয়ে শিশুদের নাম রাখার ক্ষেত্রে বিশেষভাবে উপযুক্ত। আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের পছন্দের অক্ষর উ দিয়ে হিন্দু ধর্মের মেয়ে শিশুদের জন্য কিছু নামের তালিকা সংগ্রহ করেছি শুধুমাত্র আপনাদের সুবিধার্থে। অনেকেই নাম রাখার ক্ষেত্রে তাদের পছন্দের অক্ষরকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

কিন্তু একই সাথে এতগুলো নাম বাবা বেশিরভাগ সময় সম্ভব হয় না ফলে নাম নির্বাচন করাটা বেশ ঝামেলায়পূর্ণ হয়ে ওঠে। তাই আপনাদের ঝামেলা মুক্তভাবে সহজে নাম খুঁজে পেতে সাহায্য করার জন্য আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের পছন্দের অক্ষর দিয়ে হিন্দু মেয়ে শিশুদের জন্য এলাম গুলো সংগ্রহ করেছি। আপনারা চাইলে অতি স্বল্প সময়ের মধ্যে এবং খুব সহজেই আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করে বেছে নিতে পারেন আপনাদের পছন্দের নাম ।

দুই ও তিন অক্ষরের নাম

মানুষ চায় বাচ্চার নাম জানো সহজে সংক্ষিপ্ত হয় সে ক্ষেত্রে দুই অক্ষরের তিন অক্ষরের নাম গুলো সবচেয়ে ভালো। অতিরিক্ত বড় নাম হলে ঝামেলা হতে পারে যা লিখতে ও উচ্চারণ করতে কঠিন হবে। তাছাড়া বড়নাম মানুষ পছন্দ করেনা। বেশিরভাগ মানুষের নাম দিয়ে অক্ষর এ তিন অক্ষরের মধ্যে হয়ে থাকে। আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের পছন্দ অনুযায়ী হিন্দু মেয়ে শিশুদের জন্য দুই অক্ষরের তিন অক্ষরের নাম সম্পর্ক করেছি যেগুলো উ অক্ষর দিয়ে শুরু হয়েছে। আরে নামগুলো অর্থসহ পর্যায় ক্রমে সাজিয়ে রেখেছি যেন আপনারা সহজেই আপনাদের পছন্দের নাম খুঁজে পেতে পারেন। তাই যখনই আপনার প্রয়োজন হবে আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন হিন্দুর মেয়ে শিশুদের জন্য পছন্দের নাম বেছে নিতে।

শাহরিয়ার হোসেন

শাহরিয়ার হোসেন একজন ক্ষুদ্র ব্লগার। লিখতে খুব ভালোবাসেন। অনলাইনে বিভিন্ন ব্লগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে লিখছেন। কাজের চেয়ে নিজের নাম প্রচারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেন। সে চিন্তা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button