রাতে কাশি কমানোর উপায়

রাতে কাশি কমানোর উপায়

বর্তমানে শীতের আবহাওয়া বিরাজ করার কারণে রাত হলেই আমাদেরকে খুব সহজেই ঠান্ডা আক্রমণ করছে এবং রাতের বেলায় কাশির প্রভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই কারো যদি রাতের বেলায় কাশির পরিমাণ বেশি হয়ে যায় তাহলে রাতে কাশি কমানোর উপায় হিসেবে আজকের এই পোস্ট আপনারা পড়তে পারেন। আপনাদের উদ্দেশ্যে আমাদের ওয়েবসাইটে রাতে কাশি কমানোর উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হবে এবং মনে করে যে এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনারা রাতে কাশি কমানোর জন্য সঠিক নিয়ম অনুসরণ করতে পারবেন।

রাত হলো একটি বিশ্রামের সময় এবং এই ক্ষেত্রে আপনি যখন ঘুমাবেন এবং কাশি যখন অনবরত আপনাকে জ্বালাতন করবে তখন আপনার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটবে। তাই ঘুমের যেন ব্যাঘাত না ঘটে সেই বিষয়টিকে প্রাধান্য দেওয়ার উদ্দেশ্যে অবশ্যই আপনারা কাশি দমিত করবেন এবং এক্ষেত্রে নিচের দেখানোর নিয়ম গুলো আপনারা যদি অনুসরণ করেন তাহলে দেখা যাবে যে রাতের বেলা কাশির প্রকোপ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারবেন।

সাধারণত শীতের আবহাওয়াতে আমরা খুব সহজেই কাশি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। আপনি যদি কাশি পুষে রাখেন তাহলে দেখা যাবে যে এটা আস্তে আস্তে বেশি হচ্ছে এবং কাশতে কাশতে গলার অবস্থা এমন হবে মনে হবে যে সেখানকার কোন কিছু ছিড়ে গিয়েছে এবং সেখানে জ্বালা যন্ত্রণা করবে। তাছাড়া আপনি যখন শারীরিক বিশ্রামের জন্য রাত্রে বেলায় ঘুমাবেন তখন যদি আপনার কাশে উঠে তাহলে ঘুমের যেমন ব্যাঘাত ঘটবে তেমনিভাবে কাশির কারণে আপনি বিভিন্ন ধরনের অস্বস্তি দিয়ে ভুগতে থাকবেন। তাই আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনারা রাতের বেলা কাশি কমানোর ক্ষেত্রে কি কি পদ্ধতি অবলম্বন করবেন তা জেনে নেওয়ার চেষ্টা করুন।

আপনাদের যদি রাতের বেলায় কাশি হয় তাহলে আপনারা আগে থেকেই এর জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে সর্তকতা অবলম্বন করবেন। সাধারণত যে কারণে আপনার কাশি হচ্ছে সেই বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে এবং সেই বিষয়গুলো যদি আপনার এড়িয়ে চলতে পারেন তাহলে সবচাইতে ভালো হবে। অনেকে আছেন যারা কোল্ড ড্রিংকস অনেক পছন্দ করে থাকেন এবং এক্ষেত্রে আপনাদেরকে বলবো যে রাতের বেলা কোল্ড ড্রিংকস খাওয়া থেকে বিরত থাকুন এবং ফ্রিজের যেকোনো ধরনের খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। রাতের বেলায় ঠান্ডা পানি খাওয়ার পরিবর্তে কুসুম গরম পানি আপনারা খেতে পারেন এবং এক্ষেত্রে আপনার গলা পরিষ্কার রাখার জন্য বিভিন্ন ধরনের লিকুইড দিয়ে গার্গল করতে পারেন।

যখন আপনার এই কাশির প্রভাব অনেক বেশি হবে তখন আপনারা মাঝেমধ্যে আদা চা অথবা মসলা মিশ্রিত চা খেতে পারেন। সাধারণত আপনার গলাতে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হওয়ার কারণে এই কাশি হচ্ছে এবং এটা আপনাকে মেনে নিয়ে গলা কে সবসময় উষ্ণ রাখতে হবে এবং গলায় ঠান্ডা না লাগে তার জন্য নরম কাপড় গলায় পেঁচিয়ে রাখলে সেটা সবচাইতে ভালো হবে। যদি গরমের আবহাওয়াতে এরকম হয় তাহলে দেখা যায় যে অনেকের শরীরে গরম লাগছে কিন্তু ফ্যান চালানোর কারণে কাশি হচ্ছে।

এক্ষেত্রে আপনারা গলায় নরম কাপড় দিয়ে রাখলে কাশির আশঙ্কা থেকে অনেকটাই মুক্তি পাবেন এবং এক্ষেত্রে আরামে ঘুমাতে পারবেন। এছাড়াও আপনার কাশি যদি না কমে তাহলে আপনাকে বলব যে আপনি যদি একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন তাহলে খুব ভালো হবে।

শুকনা অথবা কফ মিশ্রিত কাশি যদি আপনাকে অনবরত জ্বালাতন করতে থাকে তাহলে আপনি বাজারে গিয়ে একজন ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করে যদি সেই অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে পারেন তাহলে সবচাইতে ভালো হবে। বাজারে বিভিন্ন ধরনের কাশির সিরাপ রয়েছে যেটা দুই থেকে তিন দিন সেবন করলেই আপনার অনেক ভালো কাজ করবে এবং আপনি আরামে রাতের বেলা ঘুমাতে পারবেন। তাছাড়া ওষুধ খাওয়ার পাশাপাশি আপনারা রাতের বেলায় কুসুম গরম পানি এবং যেকোনো ধরনের ফ্রিজের হিমায়িত খাদ্য থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করবেন। আশা করি যে উপরের নিয়ম গুলো মেনে চললেই আপনাদের রাতের বেলা কাশি থেকে মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

About শাহরিয়ার হোসেন 4779 Articles
Shahriar1.com ওয়েবসাইটে আপনার দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় যা কিছু দরকার সবকিছুই পাবেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*