জিপি, রবি, এয়ারটেল, বাংলালিংক ইন্টারনেট মেয়াদ বৃদ্ধি ২০২০ কিভাবে করবেন জেনে নিন

আমরা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করি তারা সবচেয়ে বেশি যে সমস্যার সম্মুখীন হই তা হলো ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ। কারণ বেশিরভাগ সময়ই দেখা যায় আমরা যত মেগাবাইট ইন্টারনেট ক্রয় করি তা বেশিরভাগ অংশই অব্যবহৃত থেকে যায়। কারণ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তা ব্যবহার করে শেষ করা যায় না।

আপনি কি ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ বৃদ্ধি করতে চাচ্ছেন? তাহলে আপনার জন্য সমাধান নিয়ে হাজির হলাম। এখন থেকে আর আপনার অব্যবহৃত ইন্টারনেট নষ্ট হবে না। কারণ আজকে আমরা আলোচনা করব কিভাবে বিভিন্ন সিমের ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ বৃদ্ধি করে ব্যবহার করা যায়।

জিপি ইন্টারনেট মেয়াদ বৃদ্ধি ২০২০

বিভিন্ন উপায়ে খুব সহজেই জিপি সিমের ইন্টারনেট এর মেয়াদ বৃদ্ধি করা যায়। এর মধ্যে রয়েছে নতুন প্যাকেজ ক্রয় করা বা ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর মাধ্যমে মেয়াদ বৃদ্ধি করা। আজকে আমরা দুইটা উপায় সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব।

নতুন প্যাকেজ ক্রয় করাঃ

আপনি যে ইন্টারনেট প্যাকেজটি ব্যবহার করছেন মেয়াদ শেষের পূর্বে যদি তা পুনরায় ক্রয় করেন তবে অটোমেটিক্যালি নতুন মেয়াদে পুরাতন মেগাবাইট যুক্ত হয়ে যাবে। তবে সব ইন্টারনেট প্যাকেজ এর ক্ষেত্রে এ নিয়ম কার্যকরী নয়।

যেমন আপনি যদি কোন অফার এর আওতায় ইন্টারনেট প্যাকেজ ক্রয় করেন তাহলে মেয়াদ বৃদ্ধি করা অসম্ভব। উদাহরণস্বরূপ আমরা ৯ টাকায় ১ জিবি ইন্টারনেট অফার এর কথা বলতে পারি। আপনি কোনোভাবেই এই প্যাকেজের মেয়াদ বাড়াতে পারবেন না।

ফ্লেক্সিপ্লান থেকে মেয়াদ বৃদ্ধিঃ

আপনারা জানেন ফ্লেক্সিপ্লান থেকে ইচ্ছামত প্যাকেজ তৈরি করে তা ক্রয় করা যায়। যেমন আপনি ১, ৩, ৭, ১৫ এবং ৩০ দিন মেয়াদে ইন্টারনেট কিনতে পারবেন। মনে করেন আপনি 15 দিন মেয়াদে কোন ইন্টারনেট প্যাকেজ কিনেছেন।

কিন্তু 15 দিনের ইন্টারনেট প্যাকেজ ব্যবহার করে শেষ করতে পারলেন না। সে ক্ষেত্রে পরবর্তীতে মেয়াদ শেষের পূর্বেই পুনরায় একই প্যাকেজ কিনলে পূর্বের অব্যবহৃত ইন্টারনেট পরবর্তী মেয়াদের সাথে যুক্ত হয়ে যাবে।

গ্রামীণফোন তাদের নীতিমালায় খুব দ্রুত পরিবর্তন আনে। সে কারণে আমাদের দেখানো সিস্টেম কাজ নাও করতে পারে। এই নিয়মগুলো বর্তমানে প্রচলিত আছে কিনা জানার জন্য নিচে মন্তব্য করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

রবি ইন্টারনেট প্যাকেজ মেয়াদ বৃদ্ধি ২০২০

রবি সিমে অনেক বড় বড় ইন্টারনেট প্যাকেজ ক্রয় করা যায় খুবই অল্প দামে। সে কারণেই অনেক ডাটা অব্যবহৃত থেকে যায়। অনেকেই বিভিন্ন ভাবে মেয়াদ বৃদ্ধির চেষ্টা করে থাকেন। কিছু ক্ষেত্রে তারা সফল হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের চেষ্টা ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়।

কি কারনে রবি সিমের ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ বৃদ্ধি করা যায় না সে সম্পর্কে জানার জন্য নিচের লেখাটি পড়ুন।

এয়ারটেল ইন্টারনেট এর মেয়াদ বৃদ্ধির উপায়

আপনি কি এয়ারটেল ইন্টারনেট মেগাবাইট এর মেয়াদ বাড়াতে চাচ্ছেন? তাহলে খুব সহজেই তা করতে পারবেন। এয়ারটেলে অনেক ইন্টারনেট প্যাকেজ রয়েছে সেগুলো দীর্ঘমেয়াদি। এগুলো ক্রয় করলে আপনি অনেক দিনের মেয়াদ পাবেন। 30 দিন মেয়াদের এয়ারটেল ইন্টারনেট বান্ডেল এর সাথে আপনি মিনিট টকটাইম পেতে পারেন। এ সকল প্যাকেজ ক্রয় করলে আপনাকে আর আলাদাভাবে মেয়াদ বৃদ্ধি করা লাগবে না।

বাংলালিংক ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ বৃদ্ধি

বাংলালিংক ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ বৃদ্ধি করা যাবে খুব সহজেই। মেয়াদ বৃদ্ধির উপায় এর বিস্তারিত আলোচনা বাংলালিংক ওয়েবসাইটে দেওয়া রয়েছে। আপনি সেখান থেকে তা শিখে নিতে পারেন। এছাড়াও ইউটিউবে অনেক ভিডিও রয়েছে যেগুলো দেখে খুব সহজেই জানতে পারবেন কিভাবে বাংলালিংক ইন্টারনেট মেগাবাইট এর মেয়াদ বাড়াতে হবে।

গ্রামীণফোন(জিপি) সিমের ইন্টারনেট এর মেয়াদ কিভাবে বাড়াতে হয়?

আগেই আগেই বলেছি বিভিন্নভাবে গ্রামীণফোন সিমের ইন্টারনেট এর মেয়াদ বাড়ানো যাবে। এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হলো ফ্লেক্সিপ্লান। ফ্লেক্সিপ্লান এর সাহায্যে কিভাবে গ্রামীণফোন সিমের ইন্টারনেট এর মেয়াদ বাড়াবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

শাহরিয়ার হোসেন

শাহরিয়ার হোসেন একজন ক্ষুদ্র ব্লগার। লিখতে খুব ভালোবাসেন। অনলাইনে বিভিন্ন ব্লগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে লিখছেন। কাজের চেয়ে নিজের নাম প্রচারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেন। সে চিন্তা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স কমপ্লিট করেছেন। বর্তমানে একই বিভাগে মাস্টার্স এ অধ্যায়নরত।

Related Articles

Back to top button
Close