সমাজসেবা অধিদপ্তর ভাতা আবেদন

Rate this post

সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে আপনারা যদি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি এর মাধ্যমে ভাতা প্রদান করা হয় তা জেনে থাকেন তাহলে আপনাদের সেই ভাতা পাওয়ার যোগ্যতা অনুযায়ী আবেদন করতে পারেন। অনলাইনের মাধ্যমে বর্তমান সময়ে এ সকল কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে বলে কিছু কিছু ভাতা সকলকে যেমন প্রদান করা হচ্ছে এবং কিছু ভাতা কার্ড কমা আসার কারণে কম বিতরণ করা হচ্ছে। তাই সমাজসেবা অধিদপ্তরের অধীনে কোন ধরনের ভাতা পেতে হলে আপনাদেরকে কোন নিয়ম অনুসরণ করতে হবে সেটা আজকে এখানে আলোচনা করব।

আমরা সকলেই জানি যে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় এ এদেশের দুস্থ এবং গরিব এবং অসহায় জনগণ যাতে ভাতা পেয়ে তাদের আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন করতে পারে তার জন্য কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। বিশেষ করে একটা মানুষ যখন বৃদ্ধ হয়ে যায় এবং তার যখন উপার্জনের ক্ষমতা থাকে না তখন তার ভরণ পোষণের এই বিষয়গুলো সরকার কিছুটা হলেও প্রত্যেক মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণ এমন প্রদান করার মাধ্যমে বহন করে থাকে। তাই সেই দৃষ্টিকোণ থেকে বয়স্ক ভাতা পেতে হলে আপনাদেরকে অবশ্যই নির্দিষ্ট পরিমাণ বয়স অতিক্রম করতে হবে অথবা এন আই ডি কার্ড অনুযায়ী আপনাদের সেই বয়স হতে হবে।

পুরুষদের জন্য এনআইডি কার্ড অনুযায়ী যদি ৬৫ বছর হয়ে থাকে তাহলে আবেদন করতে পারবেন এবং নারীদের জন্য ৬২ বছর বয়স হলেই আবেদন করতে পারবেন। তাই যারা পারিবারিকভাবে চলাচল করার ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যা মনে করছেন তারা এই সরকারি সহায়তা গ্রহণ করতে পারেন এবং বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী প্রত্যেকটি আবেদনকারী সঠিকভাবে আবেদন সাবমিট করতে পারলেই এই বয়স্ক ভাতা পাওয়ার জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। তাছাড়া বয়স্ক ভাতার জন্য আপনাদেরকে সমাজসেবা অধিদপ্তরে যোগাযোগ করলে তারা আপনাদেরকে অনেকটাই সাহায্য করবে।

আমাদের সমাজে অনেক নারী আছে যারা হঠাৎ করে স্বামী বিয়োগের কারণে অথবা স্বামী মারা যাওয়ার কারণে পরবর্তীতে ছেলে সন্তান অথবা অন্যান্য সন্তানদের মুখের দিকে তাকিয়ে বিয়ে করেন না। এ সকল বাচ্চাদের ভরণপোষণ থেকে শুরু করে নিঃসন্তান নারীদের দায়িত্ব গ্রহণ করার ক্ষেত্রে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতাধীন এই বিধবা ভাতা প্রদান করা হয়। তাই কেউ যদি বিধবা ভাতা পেতে চায় তাহলে অবশ্যই তাকে আবেদন করতে হবে এবং আবেদন করার ক্ষেত্রেও একই নিয়ম অনুসরণ করতে হবে।

যারা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী আছেন অথবা যারা বেদে সম্প্রদায় আছেন তারাও চাইলে ভাতা পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারেন। তাছাড়া জন্মগতভাবে প্রতিবন্ধী অথবা হঠাৎ করে কোনো দুর্ঘটনার কারণে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা তাদের বাকি জীবন পরিচালনা করার জন্য সরকারি এই সহায়তা গ্রহণ করার উদ্দেশ্যে আবেদন করতে পারেন। যদিও অতীতে এমআইএস ভাতা ডটকম এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করার মাধ্যমে আবেদন করা যেত এবং সেই আবেদন পত্র ডাউনলোড করে নিয়ে কর্তৃপক্ষের হাতে জমা দেওয়া লাগতো কিন্তু বর্তমান সময়ে ওয়েবসাইট পরিবর্তন করা হয়েছে।

সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে আপনারা এই আবেদন করার জন্য মাই গভ বিডি এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করে আবেদন করার সুযোগ পাবেন। অর্থাৎ সেখানে গিয়ে আপনাদের ভাতা ও ঋণ প্রদান সংক্রান্ত যে অপশন দিয়ে দেওয়া আছে সেখানে ক্লিক করলে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা এবং প্রতিবন্ধী ভাতা সংক্রান্ত আবেদনের অপশন পেয়ে যাবেন। আবেদন করার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাদেরকে সঠিকতা অবলম্বন করতে হবে এবং আমরা আপনাদেরকে যে বিশেষ করে জানিয়ে দিয়েছে সেগুলো অনুসরণ করতে পারলে আশা করি খুব সহজ নিয়ম অনুসরণ করে আবেদন করতে পারবেন।

প্রধানত সেই অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করার মাধ্যমে আপনাদেরকে মোবাইল নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে একটি একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে। কারণ এর মাধ্যমে আপনারা আবেদনপত্র সাবমিট করার সাথে সাথে একটা ট্রাকিং আইডি পাবেন যেটার মাধ্যমে আপনাদের আবেদনের বর্তমান অগ্রগতি জানতে পারবেন। এছাড়া জন্ম নিবন্ধন সনদ অথবা এন আই ডি কার্ড অনুযায়ী তথ্য যাচাই করার ভিত্তিতে সেখানে আপনারা সকল তথ্য সঠিকভাবে সাবমিট করবেন এবং কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিলে পরবর্তীতে তাদের বিবেচনার ভিত্তিতে ভাতা প্রদান করা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button