ভাবসম্প্রসারণ: কীর্তিমানের মৃত্যু নেই / মানুষ বাঁচে তার কর্মের মধ্যে, বয়সের মধ্যে নহে Kirtimaner Mrittu Nai – Manush Bache Tar Kormer Moddhe Boyosher Moddhe Noi

ভাবসম্প্রসারণ: কীর্তিমানের মৃত্যু নেই / মানুষ বাঁচে তার কর্মের মধ্যে, বয়সের মধ্যে নহে

আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের সকলকে স্বাগত জানাই। আজো আমরা বরাবরের মতই বাংলা ব্যাকরণ এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ভাব-সম্প্রসারণ নিয়ে আলোচনা করব। আপনারা আপনাদের প্রয়োজনীয় যে সকল ভাব-সম্প্রসারণ খুজতেছেন তা আমাদের এই শিক্ষাবিষয়ক ওয়েবসাইট এ ভাবসম্প্রসারণ এর টপিক লিখে সার্চ দিলেই আপনার আপনাদের সেই ভাব সম্প্রসারণ পেয়ে যাবেন।
আমরা প্রকৃতপক্ষে চেষ্টা করি বিভিন্ন শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় আসা উপযোগী ভাব সম্প্রসারণ গুলো এই ওয়েবসাইটে তুলে ধরার।

কারণ বাংলা ব্যাকরণ -এ ভাব সম্প্রসারণ এর কোন অভাব নেই। আর সকল ভাব-সম্প্রসারণ পরীক্ষার আগ মুহূর্তে মুখস্ত করা সম্ভবপর হয়ে ওঠেনা। তাই আমরা আমাদের এই ওয়েবসাইটে পরীক্ষায় আসার উপযোগী ভাব সম্প্রসারণ নিয়েই আলোচনা করে থাকি।
আজও আমরা যে ভাব সম্প্রসারণটি তিনি আলোচনা করব সেটি হল কীর্তিমানের মৃত্যু নেই। এই ভাব সম্প্রসারণ টি অন্যভাবেও আসতে পারে সেটি হল মানুষ বাঁচে তার কর্মের মধ্যে বয়সের মধ্যে নহে।

 কীর্তিমানের মৃত্যু নেই অথবা মানুষ বাঁচে তার কর্মের মধ্যে, বয়সের মধ্যে নহে।

মূলভাব: ইংরেজিতে একটি কথা আছে, ” Man is mortal” অর্থাৎ মানুষ মরণশীল। যার জন্ম আছে তার মৃত্যু আছে। এই পৃথিবীতে মানুষ দীর্ঘ সময়ের জন্য আসে না বা বেঁচেও থাকে না। মানবজীবন সংক্ষিপ্ত হলেও পৃথিবীতে মানুষ স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকে তার কীর্তির মধ্যে আর সে কীর্তি মানুষের কর্মসাধনারই ফল। মানব জীবনে কর্মই মূল্যায়নের মানদন্ড। বয়স বড় কথা নয়। কাজের মহিমায় মানুষকে যুগ-যুগান্ত ধরে বাঁচিয়ে রাখে।

সম্প্রসারিত ভাব: মানব জীবনের প্রকৃত সার্থকতা কর্ম সাফল্যের ওপর নির্ভরশীল। মানুষ স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকে তার কীর্তির মাঝে, আর সে কীর্তি মানুষের কর্ম-সাধনার ফল। মানুষমাত্রই জন্ম-মৃত্যুর অধীন। পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করলে অনিবার্যভাবে একদিন তাকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতেই হবে। আর মৃত্যুর মধ্য দিয়েই সে জগৎ-সংসার থেকে নিঃশেষ হয়ে যায়। মৃত্যুর সাথে সাথে মানুষের জীবন- লীলার অবসান ঘটে।

আয়ু যত দীর্ঘ ই হোক না কেন, কারো দ্বারা যদি মানুষের কোন কল্যাণ সাধিত না হয় বা মানুষের জন্য কল্যাণকর কোন কর্মের স্বাক্ষর রেখে যেতে ব্যর্থ হয়, তাহলে তার কথা কেউ কোনদিন মনে রাখেনা। পক্ষান্তরে আয়ু যতই হোক না কেন যদি কেউ মানুষের কল্যাণ ও শাশ্বত সুন্দরের জন্য কীর্তিগাথা রেখে যেতে সক্ষম হন, তাহলে যুগে যুগে মানুষ তাঁকে স্মরণ করে। মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা দ্বারা সে সিক্ত হয়।মরেও তিনি বেঁচে থাকেন মানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায়।

পৃথিবীর ইতিহাসে এমন অনেক মানুষ আছেন মৃত্যু যাদের নিঃশ্বাস করতে পারেন নি। হযরত মুহাম্মদ(স), হযরত আবু বকর(রা), কাজী নজরুল ইসলাম, স্বনামধন্য আবিষ্কারক গণ, শেক্সপিয়ার, একে ফজলুল হক- এদের কেউ আজ বেঁচে নেই। কিন্তু তবু এরা আমাদের প্রতিদিনের চিন্তা-চেতনায় জীবন্ত হয়ে আছেন- ‘মনের মন্দিরে নিত্য সেবে সর্বজন’।

মানুষের দেহ নশ্বর কিন্তু কীর্তি অবিনশ্বর। মানুষের কল্যাণে কেউ যদি কাজ করে প্রতিষ্ঠা করে অমর কীর্তি, তবে মৃত্যুর পরও কীর্তির মধ্য দিয়েই সে বেঁচে থাকে মানুষের হৃদয়ের মণিকোঠায়।

মন্তব্য: যারা বোকা ও এবং অবিবেচক তারাই কর্ম সাধন আমাকে এড়িয়ে চলে। মানুষের অবর্তমানে তার কর্মই বেঁচে থাকে। মানুষ কোন একদিন হারিয়ে যাবে কিন্তু তাঁর কর্ম বেঁচে থাকবে আমাদের অন্তরে।

প্রিয় শিক্ষার্থী ভাই ও বোনেরা আজকে আমরা যে ভাব সম্প্রসারণ টি নিয়ে আলোচনা করলাম সেটা আপনাদের অবশ্যই ভালো লাগবে আশা করি। বর্তমান ইন্টারনেট যুগে আমাদের এই ওয়েবসাইটে আমরা চেষ্টা করেছি আপনাদের শ্রেণি শিক্ষার পাশাপাশি অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষা বিষয়ক মূল্যবান বিষয়ের উপর আলোচনা করার। কারণ আমরা আমাদের এই ওয়েবসাইটে শুধুমাত্র শিক্ষা বিষয়ে এর উপরেই বিভিন্ন তথ্যমূলক তথ্য উপস্থাপন করে থাকি। আপনারা বেশি বেশি করে এই ওয়েবসাইট ভিজিট করুন এবং শিক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য নিজে দেখুন এবং অন্যকে দেখতে সাহায্য করুন।

About শাহরিয়ার হোসেন 4779 Articles
Shahriar1.com ওয়েবসাইটে আপনার দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় যা কিছু দরকার সবকিছুই পাবেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*