পড়া মনে রাখার ইসলামিক উপায় – পড়াশোনায় মনোযোগ আনার ইসলামিক উপায় ও দোয়া

আল্লাহ তাআলা মানুষের ব্রেইনকে অনেক পাওয়ার দিয়ে তৈরি করেছেন, মানুষের ব্রেনের স্মৃতি ধারণ ক্ষমতা তুখোড়।

আমরা সাধারণত কম্পিউটারে মেমোরি থেকে অবাক হয়ে যায় কিন্তু সৃষ্টিকর্তা মানুষের ব্রেনকে কত জিবি মেমোরি দিয়ে তৈরি করেছে তা নির্ণয় করতে বিজ্ঞানীরা এখনো ব্যর্থ।

মানুষের ব্রেন 1 বিলিয়ন নিউরন দিয়ে তৈরি, প্রতিটি নিউরন একে অপরের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

সৃষ্টিকর্তা যখন এত পাওয়ার দিয়ে আমাদের মেমোরি তৈরি করেছেন তখন সামান্য পড়াশোনা আমাদের মনে থাকে না কেন? এই প্রশ্নটা আমাদের সকলের মনেই উঁকিঝুঁকি মারে।

পড়া মনে রাখার বিভিন্ন টেকনিক রয়েছে, আপনি যদি সর্বক্ষণ পড়াশোনা করতে থাকেন তাহলে আপনার মেমোরি ততটা গেইন করতে পারবেনা যতটা গেইন করতে পারবে ফ্রেশ ব্রেইনে।

এক গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, আমাদের ব্রেইনে আলফা ওয়েভ তৈরি করতে হলে পড়াশোনা বেশি মনে থাকে বা আমাদের মেমোরি বেশিক্ষণ একটি জিনিস মনে রাখতে পারে। এখন প্রশ্ন জাগে কিভাবে আমাদের ব্রেইনে আলফা ওয়েভ তৈরি হবে?

পড়ার টেবিলে বসার আগে কিছুক্ষণ যদি ধর্ম সম্পর্কিত কিছু অথবা কুরআন তেলাওয়াত শোনা যায় তাহলে আমাদের ব্রেইনে আলফা ওয়েব তৈরি হয়। আপনি পরীক্ষা করে দেখতে পারেন, কুরআন তিলাওয়াত শোনার পরে আপনার ব্রেন অনেকটা ফ্রেশ হয়ে যায় এর কারণ হচ্ছে আলফা ওয়েব তৈরি হয়।

সুতরাং পড়াশোনা আপনার মেমোরিতে বেশিক্ষণ ধরে রাখতে চাইলে আপনি পড়ার টেবিলে বসার আগে 10মিনিট কুরআন তিলাওয়াত শুনতে পারেন।

ভৌগলিক অবস্থান বিবেচনা করে বাংলাদেশে ভোরবেলা পড়াশোনা করলে ব্রেনে আলফা ওয়েভ তৈরি হয়,তাই আপনার স্টাডি করার ক্ষেত্রে পারফেক্ট টাইম বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ভোরবেলা। এ সময় পড়াশোনা করলে ব্রেন বেশি গেইন করতে পারে।

অনেক স্টুডেন্ট আছে যারা একনাগাড়ে পাঁচ-ছয় ঘণ্টা ধরে পড়াশোনা করে, যেটা মোটেও ঠিক নয়। আমরা পড়াশোনা করার সময় মাঝে মাঝে ব্রেক নিয়ে পড়াশোনা করতে পারি এতে আমাদের মন ব্রেন দুইটাই ফ্রেশ থাকে এবং পড়াশোনা দীর্ঘক্ষন মনে থাকে।

পড়াশোনার ব্রেকে আপনি একদমই পড়াশুনা নিয়ে ভাববেন না ,সেই টাইম একটু ইনজয় করুন আপনার পছন্দের গান শুনুন অথবা বন্ধু বান্ধবীর খোঁজ নিতে পারেন। 15 মিনিট ব্রেক নিতে গিয়ে অনলাইনে ঢুকে আপনি 2-3 ঘন্টা নষ্ট করতে পারবেন না এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে নিজেকে কন্ট্রোল করার ক্ষমতা রাখতে হবে।

পড়াশোনায় মনোযোগ আনার ইসলামিক উপায়

পড়াশোনা মনে রাখার ক্ষেত্রে আপনাকে যে বিষয়গুলো করতে হবে সেগুলোর সারসংক্ষেপ হলো-

১/ আপনি পড়ার টেবিলে বসার আগে কিছুক্ষণ কুরআন তিলাওয়াত শুনে পড়তে বসতে পারেন।

২/ একনাগাড়ে বেশিক্ষণ না পড়ে মাঝেমধ্যে বিরতি দিন এবং আপনার পছন্দমত কোন কাজ করুন। ব্রেক নেওয়ার সময় পড়াশোনা নিয়ে ভাবা যাবে না অর্থাৎ রিলাক্স মুডে আপনি আপনার ব্রেকিং টাইম টাকে ইনজয় করুন।

৩/ পড়াশোনা করার পারফেক্ট টাইম হলো ভোরবেলা। আপনার যদি দিনে পাঁচ-ছয় ঘণ্টা পড়াশোনা করা লাগে তাহলে তার দুই তিন ঘন্টা পড়াশোনা আপনি ভোর বেলায় কমপ্লিট করে রাখতে পারেন। কারণ ভোরবেলা পড়াশোনা করলে আপনার ব্রেন বেশি গেইন করতে পারে।

৪/ পড়াশোনার ক্ষেত্রে অবশ্যই প্রতিযোগিতা করতে হবে তবে অন্যের দিকে তাকিয়ে নিজে হতাশ হলে চলবে না। নিজের জন্য কোন নিয়মটা বেটার সেটা প্রথমে একজন স্টুডেন্ট কে খুঁজে নিতে হবে, অন্যের দিকে না তাকিয়ে নিজের সর্বোত্তমটা দিয়ে প্রচেষ্টা করতে হবে।

৫/ পড়াশোনার ব্রেকের মাঝে অনলাইনে আসতে পারেন তবে অনলাইনে এসে 15 মিনিট ব্রেকের জায়গায় আপনি 2-3 ঘন্টা নষ্ট যাতে না করেন সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। অর্থাৎ নিজেকে কন্ট্রোল রাখার ক্ষমতা তৈরি করতে হবে।

এগুলো অনুসরণ করলে বলা যায় আপনার ব্রেন পড়াশোনা দীর্ঘক্ষন ধরে রাখতে পারবে। পড়াশোনা করার ক্ষেত্রে আপনি উপরে উল্লেখিত নিয়মগুলো অনুসরণ করতে পারেন তাহলে আশা করা যায় আপনি আপনার কাঙ্খিত ফলাফল পাবেন।

শাহরিয়ার হোসেন

শাহরিয়ার হোসেন একজন ক্ষুদ্র ব্লগার। লিখতে খুব ভালোবাসেন। অনলাইনে বিভিন্ন ব্লগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে লিখছেন। কাজের চেয়ে নিজের নাম প্রচারের ওপর বেশি গুরুত্ব দেন। সে চিন্তা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স কমপ্লিট করেছেন। বর্তমানে একই বিভাগে মাস্টার্স এ অধ্যায়নরত।
Back to top button
Close
Close