নতুন ১০০+ মেসিকে নিয়ে স্ট্যাটাস ক্যাপশন উক্তি

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে সেরা খেলোয়াড় মেসি,এতে কি আপনি একমত পোষণ করেন? যারা মেসিকে খুব একটা পছন্দ করেন না তারাও জানেন মেসি কত বড় মনের একজন ফুটবলার। মেসির খাজারা নিয়মিত দেখেন তারা খুব ভালো করে জানেন মেসি মাঠে কি করতে পারেন। আমাদের আজকের আর্টিকেলে আমরা মেসিকে নিয়ে কিভাবে স্ট্যাটাস উক্তি ও ক্যাপশন দেয়া যায় তা নিয়ে আলোচনা করব। মেসির বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের বিভিন্ন সময় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে এই পোস্টে। এই বিশ্বকাপে মেসির পারফরমেন্স কেমন হতে পারে এবং আর্জেন্টিনা শিরোপা জিততে গেলে মেসিকে কতটা দরকার হবে তা নিয়ে কথাবার্তা বলব।

৩০০+ নতুন আর্জেন্টিনা নিয়ে ক্যাপশন স্ট্যাটাস

৩০+ মেসিকে নিয়ে নতুন ক্যাপশন স্ট্যাটাস ছবি

মেসি তার জীবনে ফুটবলের প্রতিটি শিরোপা জিতেছেন একমাত্র বিশ্বকাপ ছাড়া। বার্সেলোনার হয়ে এমন কোন শিরোপা নেই তিনি জেতেননি। মাত্র ৬ বছর বয়সে তিনি বার্সেলোনার জুনিয়র টিমে খেলা শুরু করেন। ছোটবেলায় বড় একটি শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হন লিওনেল মেসি। বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষ মেসির সেই সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসে। এরপর থেকেই মেসি ও বার্সেলোনা সম্পর্কটা অনেক বেশি গভীর হতে শুরু করে। মেসি ক্যারিয়ারে বার্সেলোনার হয়ে অনেক অনেক ম্যাচ জিতেছেন। বার্সেলোনা ছাড়ার আগে তিনি আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েছিলেন। হয়তো মেসি কখনো ভাবেননি নিজের প্রিয় এই ক্লাবটিকে কখনো ছাড়তে হবে। যদিও শেষ পর্যন্ত বার্সেলোনা ছেড়েই আসতে হয়েছে মেসিকে। বর্তমানে মেসি পিএসজিতে খেলছেন।

মেসিকে নিয়ে স্ট্যাটাস ক্যাপশন

আর্জেন্টিনা নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস ক্যাপশন

ক্লাবের হয়ে সকল শিল্পা জিতলেও জাতীয় দলের হয়ে একটা শিরোপা অধরা রয়ে গিয়েছিল মেসির। গত কোপা আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেই আক্ষেপ ঘুচিয়েছেন মেসি ‌। এবার শুধু অধরা আছে বিশ্বকাপ ট্রফিটি। বিশ্বকাপ ট্রফিটি জিতলেই ফুটবলের প্রতিটি শিরোপা নিয়ে জয় করে ফেলবেন। তাই এ বছরের বিশ্বকাপ মেসির জন্য বিশেষ হতে চলেছে ‌। বয়স ৩৫ পেরিয়েছে। হয়তো এবারই শেষ বিশ্বকাপ খেলবেন লিও। শেষ বিশ্বকাপটা নিশ্চয়ই রঙিন করে রাখতে চাইবেন তিনি। জাতীয় দলের সতীর্থরাও খুব করে চাইছেন মেসির জন্য শিরোপা টা জিততে।

১২০+ আর্জেন্টিনা নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস ক্যাপশন

এবার বেশ শক্তিশালী একটি দল নিয়ে কাতারে এসেছে মেসির আর্জেন্টিনা। টানা ৩৬ ম্যাচ অপরাজিত রয়েছে এই দলটি। আরো বেশ কয়েকটি ম্যাচ অপরাজিত থাকলে বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা খুব কঠিন হবে না মেসিদের জন্য। ডি মারিয়া, পাপ্পু গোমেজ, লাওতারো মার্টিনেজ, আনহেল কোরেরাদের থেকে খুব ভালো সাপোর্ট পাবেন মেসি এমনটা আশা করা যায়।

আমার আবেগ, ভালোবাসা শুধু তোমাকে ঘিরে লিও – ভামোস আর্জেন্টিনা।

বিশ্বকাপে শুধুমাত্র একটাই আওয়াজ হবে সেটা হলো, “আর্জেন্টিনা, আর্জেন্টিনা,আর্জেন্টিনা”, “মেসি, মেসি, মেসি”

অবশেষে নিয়ে নিলাম প্রিয় দলের জার্সিটা – এখন আমাদের সকলের একটাই চাওয়া মেসির হাতেই যেন বিশ্বকাপটা উঠুক

ভালোবাসার আরেক নাম মেসিয়ান ভাইগুলো

আর্জেন্টিনা দলকে ফেভারিট মনে হলেও শঙ্কার জায়গায় একটা রয়েছে। আর্জেন্টিনার এই দলটি ইউরোপের দলগুলোর সাথে খুব একটা খেলার সুযোগ পায়নি। বারবার ইউরোপের দল গুলোর কাছেই হোঁচট খেতে হয় ল্যাটিন আমেরিকার দল গুলোকে। এবারও যদি তেমন কিছু ঘটে তাহলে হয়তো বিশ্বকাপ ট্রফিটি ছোঁয়া হবে না লিওর।

“স্বপ্ন পূরণের পথে কখনও হাল ছেড়ো না। যখন পূরণের জন্য তোমার সুনির্দিষ্ট স্বপ্ন আছে তখন কোন কিছুই তোমাকে আটকাতে পারবে না।”

কে বিশ্বসেরা খেলোয়ার? লিও মেসি। কে ইতিহাসের সেরা খেলোয়ার? লিও মেসি- আর্সেন ওয়েঙ্গার।

“স্বপ্ন পূরণের জন্য তোমাকে লড়াই করতে হবে। অনেক ত্যাগ আর কষ্ট মেনে নিতে হবে।”

আমি কখনোই মেসির মত কাউকে দেখিনি। সে ইশ্বরের অলৌকিক ক্ষমতা। সে যখন মাঠে তার কাজ গুলো করে সেটা আমি পছন্দ করি। এটা ইর্ষা নয়। তখন আমি আনন্দিত হই- আদ্রা তুরান

একদা তারা আমাকে বলত, আমাকে থামাতে হলে বন্দুকের প্রয়োজন। কিন্তু আজ আমি বলছি, মেসিকে থামাতে হলে মেশিনগান প্রয়োজন- হিরস্টো স্টোইচকোভ।

এটা পরিষ্কার যে মেসি সবার উপরে অন্য লেভেলের। যে এটা দেখেনা সে অন্ধ- জাভি

সি গ্রুপে আর্জেন্টিনাকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মত দল তেমন একটা নেই। পোল্যান্ড ও মেক্সিকো শক্তিশালী দল হলেও সমর্থকরা আশা করছেন আর্জেন্টিনা খুব সহজেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে পা দেবে। দ্বিতীয় রাউন্ডের লড়াইটা খুব একটা সহজ হবে না আর্জেন্টিনার জন্য। দ্বিতীয় রাউন্ডে ফ্রান্স কিংবা ডেনমার্কের মুখোমুখি হতে হবে তাদের। ফ্রান্স গতবারের চ্যাম্পিয়ন দল তাই আর্জেন্টিনাকে অনেক বড় চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। ডেনমার্ক ও তাদের সামনে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

আর্জেন্টিনা গত দুবছর যে ফুটবল খেলেছে তাতে বলাই যায় এবার শিরোপাটা হয়তো তারা ঘরে নিয়ে যেতে পারবে। কিন্তু বিশ্বকাপের ট্রফি ছুটে গেলে যে দরকার হবে ভাগ্যের ছোঁয়ার। এ ভাগ্য বিধাতা সাথে ছিল না বলেই ২০১৪ সালে শিরোপার কাছাকাছি গিয়েও শেষটা রাঙাতে পারেননি মেসি হিগুয়েন রা। ২০১৪ সালের সেই ব্যর্থতাকে ভুলে এবার নতুন করে শুরু করতে চাইবে স্কালোনির দল।

আমার জন্য মেসির খেলা দেখা একটি আনন্দের। এটি প্রচণ্ড উত্তেজনা থাকার মত একটি অবিশ্বাস্য আনন্দ- লুইস ফিগো

এই বার্সা মেসিকে মনে রাখবে মেসির বার্সা হিসেবে। সে সব কিছু এত সহজে করত যা আমি আগে কখনোই দেখিনি। সে এলিয়েন- পুয়োল

কোন সন্দেহ ছাড়াই মেসি বিশ্বসেরা এবং আমার কাছে সে ইতিহাসের সেরা- এনরিকে।

মেসি হল ইশ্বর। একজন ব্যক্তি হিসেবে এবং একজন খেলোয়ার হিসেবে। আমি তাকে ছোট থেকেই জানি এবং আমি তাকে বড় হতে দেখেছি- স্যামুয়েল এতো।

 

যদিও তিনি মানুষের মতো নাও হতে পারেন,ত বে এটা ভালো যে মেসি এখনও ভাবছেন যে তিনি আছেন- ম্যাশ্চেরানো

তারা বলে যে সব মানুষই ইশ্বরের চোখে সমান। এই খেলোয়ারটি আপনাকে সেই শব্দগুলো ভাবাতে শুরু করাবে- রয় হডসন

২০১৮ সালের ফ্রান্সের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল। এবার দেখা যাক ইউরোপের টিমগুলোর সামনে আর্জেন্টিনা কেমন পারফরম্যান্স দেখায়। ভাগ্য সহায় হলে এবারে হয়তো ইতিহাস লিখেই বুয়েন্স আয়ার্সে ফিরতে পারবে ১৯৮৬ চ্যাম্পিয়নরা।

মেসিকে নিয়ে যদি আপনারা কোন ধরনের পোস্ট করতে চান কিংবা মেসির ছবি আপলোড করতে চান তাহলে সেই ছবির ক্যাপশন দেওয়ার জন্য আমাদের পোস্টগুলো ভিজিট করতে পারেন। আমাদের পোস্টগুলোতে মেসিকে নিয়ে অসংখ্য স্ট্যাটাস ও ক্যাপশন দেওয়া রয়েছে যা সংগ্রহ করে নিজেদের পোস্টে লাগাতে পারবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button